শ্রমিক লীগের কমিটি, তীব্র ক্ষোভ জানালো জেলা ব্যাংক কর্মচারী নেতারা

নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের নবগঠিত কমিটি নিয়ে প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ ব্যাংক কর্মচারী নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। (নিউজ নারায়ণগঞ্জ ডটকম)

গণমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে তারা বলেন, ১৫ জানুয়ারী জাতীয় শ্রমিকলীগের গঠনতন্ত্রের সকল নিয়ম কানুন রক্ষা করে বৈধ প্রক্রিয়াই কমিটি গঠন করা হয়। গঠনতন্ত্রের ১৪নং ক ধারা মোতাবেক, যিনি কোন প্রার্থী নন এমন একজনকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং ২ জনকে সহকারী কমিশনার নিযুক্ত করে একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়। নির্বাচন কমিশন নিয়মানুযায়ী মনোনয়নপত্র দাখিলের মাধ্যমে নির্বাচনে অংশ গ্রহণে ইচ্ছুক প্রার্থীদের নিকট ফরম বিক্রি করেন। সে মোতাবেক প্রতি পদের বিপরীতে সকলে মনোনয়নপত্র ক্রয় করেন।

মোট ৭১টি পদের জন্য ৭১জন সদস্য মনোনয়নপত্র ক্রয় করায় এবং একই পদের বিপরীতে একাধিক প্রার্থী না থাকায় নির্বাচন কমিশন সকলকে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেন। এখানে অনিময়তান্ত্রিকভাবে কোন কমিটি গঠন করা হয়নি।

উল্লেখ্য বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের নেতা মোঃ কামাল হোসেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি, মোঃ মাহাবুব আলম, সহ ক্রীড়া সম্পাদক, অগ্রনী ব্যাংকের মোঃ মজিবুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ নজরুল ইসলাম, শ্রমিক কল্যাণ সম্পাদক, মোঃ শাহাবুদ্দিন পাঠান, আইন ও দর-কষাকষি বিষয়ক সম্পাদক, মোঃ মতিউর রহমান, সহ অর্থ বিষয়ক সম্পাদক, জনতা ব্যাংকের মোঃ আব্দুস সালাম, সহ-সভাপতি, সোনালী ব্যাংকের মোখলেছুর রহমান, সহ-সভাপতি মোঃ আক্তারুজ্জামান, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক মোঃ আসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং রূপালী ব্যাংকের মোঃ শহিদুল্লাহ, সহ-সভাপতি ও মোঃ বোরহান মিয়া, কার্যকরী সদস্য পদে মনোনয়নপত্র ক্রয় করে, স্ব-স্ব পদে নির্বাচিত হন।

২৪ ফেব্রুয়ারি নব-নির্বাচিত কমিটির প্রথম সভায় (আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে) জনতা ব্যাংকের আব্দুস সালাম ব্যতিত, সোনালী ব্যাংকের আখতারুজ্জামান সহ সকলে অংশগ্রহণ করেন। আব্দুস সালাম ও আখতারুজ্জামান নির্বাচনের জন্য যে মনোনয়নপত্র ক্রয় করে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় বিজয়ী হয়েছেন, সে মনোনয়নপত্রের ফরম নির্বাচন কমিশনের নিকট সংরক্ষিত আছে এবং আখতারুজ্জামান স্বীয় পদে নির্বাচিত হয়ে প্রথম সভায় অংশগ্রহণ করেছেন, তার স্বাক্ষরও রেজিস্ট্রারে সংরক্ষিত আছে। এমতাবস্থায় ভাসমান আব্দুস সালাম ও মোঃ আখতারুজ্জামানের কি ভীমরতি ধরেছে যে, কমিটি গঠনের ৪১ দিন পর বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার মিথ্যা ও বানোয়াট বিবৃতি দিয়ে জাতীয় শ্রমিকলীগের ভাবমূর্তি নষ্ট করার হীন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার কারন কি?

বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে আমরা নারায়ণগঞ্জ জেলার ব্যাংক কর্মচারী নেতৃবৃন্দ কোন ভাবেই তাদের এ ষড়যন্ত্র মেনে নিতে পারি না। তারা আসলে কি চায়? এটা নারায়ণগঞ্জের সর্বস্তরের শ্রমিক কর্মচারী ও সচেতন শ্রমিক সমাজ জানতে চায়। তারা সংগঠনে কোন অনুপ্রবেশকারী বা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী নাকি বিএনপি জামায়াতের গুপ্তচর হিসেবে কাজ করছে তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে এ ধরনের ষড়যন্ত্র বিএনপি জামায়াতকে সহযোগিতার মধ্য দিয়ে তাদের হীন স্বার্থ চরিতার্থ করাই মূল উদ্দেশ্য। ষড়যন্ত্রকারীদের মনে রাখা উচিত মহান স্বাধীনতা দিবস ও নবগঠিত শ্রমিকলীগের অভিষেকানুষ্ঠান-২০১৮ উপলক্ষ্যে প্রকাশিত স্মরণিকা “উন্নয়নের মহাসড়কে বাংলাদেশ” এ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক জনাব হাবিবুর রহমান সিরাজ বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জাতীয় শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ মোঃ সিরাজুল ইসলাম বীর মুক্তিযোদ্ধা নবগঠিত কমিটিকে স্বীকৃতি দিয়ে বাণী প্রদান করেছেন। সুতরাং উক্ত কমিটি নিয়ে বিতর্কের আর কোন অবকাশ থাকার কথা নয়। এর পরও যদি ষড়যন্ত্রকারীরা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকে তবে নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল ব্যাংক কর্মচারী সহ সর্বস্তরের শ্রমিক-কর্মচারী নেতৃবৃন্দ নারায়ণগঞ্জের গর্ব, শ্রমজীবি মানুষের অহংকার আলহাজ¦ শুক্কুর মাহামুদের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সমুচিত জবাব দিবে।

ব্যাংক কর্মচারীদের পক্ষে বিবৃতি দেন নারায়ণগঞ্জ সোনালী ব্যাংক এমপ্লয়ীজ ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক (ফারুক গ্রুপ) মোঃ মোখলেছুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ সোনালী ব্যাংক এমপ্লয়ীজ ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক (আজম গ্রুপ) মোঃ আসলাম, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়ন (সিবিএ), কেন্দ্রীয় কমিটি সহ-সভাপতি মোঃ কামাল হোসেন, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়ন (সিবিএ) জেলার সভাপতি হাবিবুল্লাহ খান, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়ন (সিবিএ) জেলার কার্যকরী সভাপতি আল-আমিন, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়ন (সিবিএ) জেলার সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলম, অগ্রনী ব্যাংক কর্মচারী সংসদ (সিবিএ) জেলার সভাপতি নজরুল ইসলাম, অগ্রনী ব্যাংক কর্মচারী সংসদ (সিবিএ) জেলার কার্যকরী সভাপতি মতিউর রহমান, অগ্রনী ব্যাংক কর্মচারী সংসদ (সিবিএ) জেলার সাধারণ সম্পাদক শাহাবুদ্দিন পাঠান, অগ্রনী ব্যাংক কর্মচারী সংসদ (সিবিএ) জেলার কার্যকরী সদস্য মজিবুর রহমান, রূপালী ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়ন জেলার সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ শহিদুল্লাহ, রূপালী ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়ন জেলার সাধারণ সম্পাদক মোঃ বোরহান।

আপনার এগুলো পছন্দ হতে পারে