News before News

সাংবাদিকদের সাবধান করে আরো মামলার হুমকি পলাশের

নারায়ণগঞ্জের চার সাংবাদিকদের নামে মামলার পর এবার তাদের নাম উচ্চারণ করে সাবধান করেছেন শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় নেতা কাউসার আহমেদ পলাশ যাঁর অনুসারীরা এর আগে সাংবাদিকদের চামড়া খুলে নেওয়ার প্রকাশ্য হুমকি দিয়েছিলেন।

১১ এপ্রিল বুধবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পলাশ বক্তৃতায় ওই বক্তব্য রাখেন যেসব মামলার বাদী পলাশ নিজেই। তিনি এদিন এও বলেছেন, ‘আগামীতে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে কোন সংবাদ প্রকাশ হলে আরো মামলা দেওয়া হবে। কোন ছাড় দেওয়া হবে না। আমি ছাড় দেওয়ার মানুষ না।’

পলাশ চারজন সাংবাদিকের নাম উচ্চারণ করে বলেন, ‘তানভীর, আলামিন, বাদল ভাই ও জাবেদ জুয়েল আমার বিরুদ্ধে লিখে চলেছে। শুনেছি গোল টেবিল বৈঠক করে আরো কয়েকজন প্রস্তুতি নিচ্ছে। তারা নিউজ করলে তাদের বিরুদ্ধেও মামলা হবে। কোন ছাড় দিব না।’

পলাশ বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যেসব সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে তার কোন ভিত্তি নাই। নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি মনোনয়ন চেয়েছিলাম। কিন্তু আকাশ থেকে সিদ্ধান্ত আসে নাই। আগামীতে আমি মনোনয়ন চাইবো। যদি আকাশ থেকে সিদ্ধান্ত আসে আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দেন তাহলে আমি অবশ্যই নির্বাচন করবো। তখন কেউ মনোনয়ন ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না।’

বাংলাদেশ ট্রাক কভার্ড ভ্যান আন্তজেলা শ্রমিক ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে ওই সমাবেশে ট্রাক কাভার্ডভ্যান ইউনিয়নের সভাপতি মনির তালুকদার বলেন, ‘এই দেশের ছোট বড় সকল সাংবাদিকেরা আমাদের সামনে দেশের তথ্য তুলে ধরেন। তার মাধ্যমে সারা দেশে কি হয়েছে তা জানতে পারি। পলাশ ভাইয়ের বিরুদ্ধে কিছু মিথ্যা অপপ্রচার করেছেন কিছু সংবাদ মাধ্যমে। কিন্তু সাংবাদিক ভাইয়ের আপনেরা জানেন না-এমন জায়গায় খোঁচা দিছেন, বল্লার বাসা, বল্লার বাসায় খোঁচা দিছেন। আগামীতে খোঁচা দিলে কেউ রেহাই পাবেননা। এই শ্রমিকেরা একত্রিত হলে বাংলাদেশের কোন প্রান্তেই থাকতে দিবেনা। আপনারা ভুল স্বীকার করেন, অন্যথায় আমরা আমাদের প্রতিবাদ চালিয়ে যাব।

ট্রাক চালক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ বলেন, ‘আপনারা যদি ভাল করে তদন্ত করে এই নিউজটা করেন তাহলে আপনাদের কাছে কৃতজ্ঞ থাকব। আপনাদের নিউজের মাধ্যমে কাউসার আহম্মেদ পলাশকে খেপিয়ে দিয়ে ট্রাক ড্রাইভারদের খেপায়া দিবেননা। তাহলে কিন্তু আমরা সারা বাংলাদেশ অচল করে দেয়ার চেষ্টা করবো। কারণ পলাশ সকল শ্রমিকের নয়ন মনি।’

ট্রাক ভ্যান ইউনিয়নের সভাপতি তাইজুল ইসলামের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিতি ছিলেন শ্রমিক নেতা বাবুল আহম্মেদ সহ প্রমুখ।

জানা গেছে, সংবাদ প্রকাশের জের ধরে গত ৫ এপ্রিল শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কাউসার আহমেদ পলাশ যুগান্তর প্রতিনিধির বিরুদ্ধে একটি মানহানি ও অপরটি ৫৭ ধারায় মামলার আর্জি করেন। আদালত মানহানি মামলা গ্রহণ করেন ও ৫৭ ধারার মামলাটি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশকে। একই দিন ইত্তেফাকের জেলা প্রতিনিধি হাবিবুর রহমান বাদল ও সময়ের নারায়ণগঞ্জ সম্পাদক জাবেদ আহমেদ জুয়েলের বিরুদ্ধে পৃথকভাবে দুটি মামলা করেন। এছাড়া সবশেষ গত ৯ এপ্রিল নিউজ নারায়ণগঞ্জের নির্বাহী সম্পাদক তানভীর হোসেনের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় একটি মামলা করেন। এর মধ্যে ৪ এপ্রিল পলাশের অনুসারীরা ফতুল্লার পঞ্চবটি থেকে পুলিশ লাইন পর্যন্ত মিছিল করে সাংবাদিকদের চামড়া খুলে নেওয়ার হুমকি দেন।

আপনার এগুলো পছন্দ হতে পারে