News before News

খালেদা ও তারেকের রায় ঘিরে ৩৫ দেশে বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মামলার রায় ঘিরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে প্রবাসী শাখা বিএনপি।

রায়কে কেন্দ্র করে  বৃহস্পতিবার প্রবাসী বিএনপি নেতাকর্মীরা একযোগে বিশ্বের ৩৫টি দেশে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধনসহ কর্মসূচি পালন করেছেন এবং সংশ্লিষ্ট দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন।

দেশের বাইরে বিএনপির আন্দোলন নিয়ে কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাকিরুল ইসলাম খান শাকিল জানান, এটা আজ সবার কাছে পরিষ্কার যে, কথিত দুর্নীতির মিথ্যা মামলায় সাজানো রায় ঘোষণা আগামী জাতীয় নির্বাচনে বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখার ষড়যন্ত্রের অংশ। কাজেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী বাংলাদেশি জনগণ পুরো দেশবাসীর মতোই উদ্বিগ্ন ও ক্ষুব্ধ। যার বহিঃপ্রকাশ আজকে এশিয়া, ইউরোপ ও আমেরিকাসহ বিভিন্ন দেশে তীব্র ঠাণ্ডা ও প্রতিকূল আবহাওয়া উপেক্ষা করে আমাদের নেতাকর্মীসহ সাধারণ জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধনের মাধ্যমে প্রতীয়মান হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে আজকে আমাদের নেতাকর্মীরা বিভিন্ন দেশে কর্মসূচি পালন করে সংশ্লিষ্ট দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন।

শাকিল বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলার সাজানো রায় দিলে শুধু দেশে নয়, বহির্বিশ্বেও গণঅভ্যুত্থান সৃষ্টি হবে। শুরু হবে সরকার পতনের এক দফা আন্দোলন।

তিনি কঠোর আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, মিথ্যা মামলায় সাজানো রায় ঘোষণা করা হলে দেশের সব মানুষকে সাথে নিয়ে গণঅভ্যুথান গড়ে তুলতে হবে, যা সরকারের পতন ঘটিয়ে শেষ হবে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সৌদিআরব বিএনপির সভাপতি আহমেদ আলী মুকিব জানান, মধ্যপ্রাচ্যের প্রত্যেকটি দেশে সুন্দর ও সফলভাবে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দলের প্রবাসী সৌদি আরব বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক এইচ এম নুরুল হক নুরুও রায়কে ঘিরে কোন প্রহসনের চিন্তা করা হলে কঠিন পরিস্থিতির ইঙ্গিত দিয়েছেন।

মুকিব হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে অন্যায় রায় হলে জনগণ  ঘরে বসে থাকবে না। খালেদা জিয়াকে জেলে নিলে এদেশের জনগণ জেগে উঠবে এবং তারা দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করবে।

বেলজিয়াম:

এদিকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি বেলজিয়াম শাখার উদ্যোগে রায়কে কেন্দ্র করে ১ ফেব্রুয়ারি রোজ বৃহস্পতিবার ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদর দপ্তর ব্রাসেলসে বেলজিয়াম বিএনপির সভাপতি আহমেদ সাজার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বাবুর পরিচালনায় বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বিএনপি নেতাকর্মীরা একযোগে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধনসহ লাগাতার কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন।

সমাবেশ শেষে বেলজিয়ামের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নেতাদের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এসময় বেলজিয়াম বিএনপির সভাপতি আহমেদ সাজা সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বাবু সাংগঠনিক সম্পাদক আলী নুর শামীম ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নেতাদের কাছে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি, মানবাধিকার অবস্থা, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডসহ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের  মামলার বিষয়টিও অবহিত করা হয়।

তাদের বলা হয়, সরকার প্রতিহিংসামূলকভাবে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা সাজিয়ে বিচার কাজ চালাচ্ছে। বিশেষ করে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের সম্পৃক্ততায় কোনো তথ্যপ্রমাণ না থাকার বিষয়টি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নেতাদের কাছে বিস্তারিতভাবে তুলে ধরা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বেলজিয়াম বিএনপির সভাপতি আহমদ সাজা, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক আলী নুর শামীম, যুগ্ম সম্পাদক আবু সাঈদ, অর্থ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, সহসাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক মোল্লা, ধর্ম সম্পাদক আব্দুল বাতেন মার্টিন, সহ দপ্তর সম্পাদক মাহমুদুল হক মমো, প্রবাসী কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আশিক উদ্দিন,  যুবদলের আহবায়ক কাজী রহিমুল বাবু, যুগ্ম আহ্বায়ক মোস্তাফা বাবু, যুগ্ম আহ্বায়ক সাইফ উদ্দিন ইরানী, যুগ্ম  আহ্বায়ক সাখাওয়াত হোসেন রাফি, যুগ্ম আহ্বায়ক ইসমাইল হোসাইন ফরহাদ ও যুবদল নেতা শামীম।

বেলজিয়াম বিএনপির সভাপতি আহমদ সাজা বলেন, চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে সাজা দিলে সরকার পতনে দেশে-বিদেশে একযোগে আন্দোলন শুরু হবে।

সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন বাবু বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম  খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে  আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন থেকে বাইরে রাখার ষড়যন্ত্র হচ্ছে।

বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে  যদি অন্যায়ভাবে রায় দেয়া হয়, তাহলে শুরু হবে সরকার পতনের আন্দোলন। সেই আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন নিশ্চিত করে নির্বাচনকালীন সরকার প্রতিষ্ঠা করে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে জনগণের সরকার গঠন করা হবে।’

যুক্তরাজ্য:

যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক ও সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদের নেতৃত্বে বিশাল বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এম এ মালেক বলেন, ‘দেশে দুঃসময় ও ক্রান্তিকাল চলছে। সমগ্র বাংলাদেশ আজ শেখ হাসিনার বৃহৎ কারাগারে পরিণত। এ কারাগার থেকে দেশের মানুষ মুক্তি চায়। সেই মুক্তির দায়দায়িত্ব যখন বিএনপিকেই নিতে হচ্ছে, ঠিক তখন ক্ষমতাসীন সরকার জাতীয়তাবাদী দলকে দাবিয়ে রাখতে তাদের কণ্ঠরোধ করতে উঠেপড়ে লেগেছে। কেননা তারা (সরকার) ভালো করে জানে জনগণ একবার ভোট দেয়ার সুযোগ পেলে এ সরকার টিকতে পারবে না।’

বেগম খালেদা জিয়া ব্যতীত একাদশ জাতীয় নির্বাচন হবে না। নির্বাচন হতে দেয়া হবে না বলেও স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন প্রবাসী বিএনপির নেতা।

সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমেদ বলেন, ‘আওয়ামী সরকার দেশের গণতন্ত্রকে ক্ষতবিক্ষত করেছে। ৫ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচন দিয়ে তারা দেশের গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার ইতিহাসে কলংকের কালেমা লেপন করেছে। দেশপ্রেমিক জনতা তাদের সেই পাতানো নির্বাচন ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। বিতর্কিত নির্বাচন দিয়ে আওয়ামী লীগ বিশ্ববাসীর কাছে তাদের অভিশপ্ত বাকশালী শাসন ব্যবস্থার স্বরূপ উন্মোচিত করেছে। তারা বুঝতে পেরেছে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তাদের কোনও দিনই ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন পূরণ হবে না। আর এই ভয়েই অবৈধ সরকার আবারও পাতানো নির্বাচনের ষড়যন্ত্র করছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে আর কোনও ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পুনরাবৃত্তির সুযোগ দেয়া হবে না। আপোসহীন দেশনেত্রী খালেদা জিয়া ও বিএনপিকে মাইনাস করে দেশে যে কোনও নির্বাচন কঠোরভাবে প্রতিহত করা হবে।

জার্মানি:

জার্মানি বিএনপির সভাপতি আকুল মিয়া, সাধারণ সম্পাদক গনি সরকার ও যুগ্ম সম্পাদক মুস্তাক আহমেদের নেতৃত্ব বার্লিনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জার্মানি বিএনপি

আয়ারল্যান্ড:

আয়ারল্যান্ড বিএনপির সভাপতি হামিদুল নাসির সাধারণ সম্পাদক কবির আহমদের নেতৃত্বে ডাবলিনে বিশাল বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে আয়ারল্যান্ড বিএনপি। বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা মাজহারুল ইসলাম ঝিনুক, গোলাম সারওয়ার, কামরুজ্জামান প্রমুখ।

আয়ারল্যান্ড বিএনপির সভাপতি হামিদুল নাসির বলেন, বর্তমান অবৈধ আওয়ামী সরকার দেশের গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। এখন বাংলাদেশের গণতন্ত্রের অতন্দ্রপ্রহরী যার নেতৃত্বে দেশে গণতন্ত্র রক্ষার আন্দোলন-সংগ্রাম চলছে, আপোসহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মামলা-হামলা ও হয়রানি করে অবৈধ আওয়ামী সরকার আবারও ক্ষমতা দখলে রাখতে চায়। যা বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ মেনে নেবে না।

তিনি বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মানে হচ্ছে বাংলাদেশ। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাজানো মামলার মিথ্যা রায় হলে বহির্বিশ্বে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

মালয়েশিয়া:

মালয়েশিয়া বিএনপির  সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার বাদল খান রহমান সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেনের নেতৃত্বে বিক্ষোভ করছে মালয়েশিয়া বিএনপি।

ফিনল্যান্ড:

ফিনল্যান্ড বিএনপি নেতা জামান সরকার ও গাজী শামসুল হকের নেতৃত্বে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন ফিনল্যান্ড বিএনপি। বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে ফিনল্যান্ড পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রদিপ শাহ, মিজানুর রহমান মিতু, মুস্তাক সরকার

গ্রিস:

গ্রিস বিএনপির সভাপতি জিএম মুখলেসুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আশরাফ উদ্দিন ঠাকুরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়াও ইতালি, অস্ট্রিয়া, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, ডেনমার্ক, সুইজারল্যান্ড, হলান্ড, নরওয়ে, স্পেন, পর্তুগাল, রাশিয়া, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, কোরিয়া, লেবানন, জর্ডান, সৌদিআরব, কুয়েত, বাহরাইন, কাতার, ওমান, মালদ্বীপ, ব্রুনাই, আলজিরিয়া, জর্জিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা শাখা বিএনপির নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ সমাবেশ করে সেসব দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন।

আপনার এগুলো পছন্দ হতে পারে